খিয়াং শিশুদের রেহাই পাওয়া যাবে না?

Jun 25, 2024 - 14:47
 0  2
খিয়াং শিশুদের রেহাই পাওয়া যাবে না?

গত ২৬ নভেম্বর ডেইলি স্টার পত্রিকার শেষ পাতায় বান্দরবান সদর উপজেলার গুঙ্গুরপাড়ার একটি বড় ছবি প্রকাশিত হয়। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, হাইকোর্টের নির্দেশে ইটভাটা বন্ধ ঘোষণার সাইনবোর্ড টাঙালেও চিমনি থেকে ধোঁয়া বের হচ্ছে। 'এবিসি' ইটের ভাটা 2005 সালে 1993 সালে প্রতিষ্ঠিত গুঙ্গুরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দেয়ালের চারপাশে নির্মিত হয়েছিল।
২০০২-০৩ সালে বান্দরবান সদরের ডলু মৌজায় গবেষণার ক্ষেত্র হিসেবে কাজ করার সুযোগ পাওয়া যায়। তারপর থেকে বহুবার গুঙ্গুর খিয়াংপাড়ায় গিয়েছি। গুঙ্গুর মধ্যক এবং আগাপাড়ায় রাত কাটানোর কথাও আমার মনে আছে।

খিয়াংরা জনসংখ্যার দিক থেকে খুবই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী। এই দল থেকে এখন পর্যন্ত দ্বিতীয় শ্রেণীর একজন কর্মকর্তার নাম শোনা যায়নি। সর্বশেষ আদমশুমারি অনুযায়ী খিয়াংড়ার জনসংখ্যা মাত্র ৪ হাজার ৮২৬ জন। এসব জাতিগোষ্ঠীর দেখাশোনা না করে তাদের বসতি এলাকায় শিশুদের জন্য নির্মিত বিদ্যালয়ের সামনে বিশাল ইটভাটা তৈরি করা হয়েছে।

স্কুল সংলগ্ন এলাকায় ইটের ভাটা নির্মাণ শুধু এই পাড়ায় হয়নি। বিভিন্ন পত্রিকার খবরে জানা যায়, বান্দরবান জেলায় আরও পাঁচটি বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় ১১টি ইটভাটা রয়েছে। এমনকি ২৭ নভেম্বর পত্রিকায় পড়েছিলাম যে বান্দরবান সদরে অভিযানের এক ঘণ্টা পর একটি ইটের ভাটা খুলে দেওয়া হয়েছে। ইটভাটা মালিকরা কতটা প্রভাবশালী হতে পারে এই ঘটনা থেকে আমরা অনুমান করতে পারি।

আরও জানা যায়, বান্দরবান জেলায় মোট ৬৩টি ইটভাটা রয়েছে, যার কোনোটিরই অনুমতি নেই। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে জেলায় ২১টি ইটভাটা বন্ধের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু শুধু নোটিশ ঝুলিয়েই কি এসব ইটভাটা বন্ধ হয়ে যাবে?

ইট বিছানো শুধুমাত্র স্কুলের পরিবেশ বা শিশুদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে না। তাজিংডং এবং আরণ্যক ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগের গবেষণা অনুযায়ী, এক দশকে (2011-20) প্রায় 190,000 বনভূমি ধ্বংস হয়েছে, যার মধ্যে ইট ভাটায় জ্বালানি হিসেবে কাঠ সংগ্রহের কারণে 450,000 একর প্রাকৃতিক বনভূমি ধ্বংস হয়েছে। , তামাক প্রক্রিয়াকরণ, কাঠ আহরণ এবং চোরাচালান। অনেক সময় অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে অভিযানও চালানো হয়। কিন্তু ইটভাটা নয়; পাহাড়, প্রাকৃতিক সম্পদ, পানির উৎস, বন ও পাহাড়ের সৌন্দর্য দিন দিন কমে যাচ্ছে।

2017 সাল থেকে, প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে পাহাড়টি ধসে পড়ছে। মানুষ মারা যাচ্ছে রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষতি। দীর্ঘদিন ধরে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। এমন সময় কয়েকদিন ধরে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। কয়েকদিনের মধ্যেই সব আলোচনা থেমে গেল।

সমাজ ও সভ্যতা গড়তে ইট লাগে। সে জন্য পরিবেশবান্ধব নানা ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। এর পরিবর্তে পাহাড়, বন, সাধারণ মানুষের জীবিকা ধ্বংস করে অন্য অঞ্চলের সভ্যতা গড়ে তোলা যাবে না। সেই সভ্যতা টেকসই হতে পারে না। ইটভাটার মালিক স্কুল জানে না; বন, পরিবেশ, ধানক্ষেত, এলাকাবাসীর ক্ষতি অনুধাবন করতে পারে না; অনুভব করা যায় না, সেই ইট টেকসই হতে পারে না।

স্কুলের বাচ্চাদের খরচে বানানো ইট সভ্যতার বিল্ডিং ব্লক হতে পারে না। শুধু পরিবেশ প্রশ্নে নয়; দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর অস্তিত্বের জন্য তাদের এলাকায় ইটভাটার মতো কার্যকলাপকে নিরুৎসাহিত করা প্রয়োজন।

What's Your Reaction?

like

dislike

love

funny

angry

sad

wow