প্রত্যেককে একটি ইউনিক হেলথ আইডি দেওয়া হবে

Jun 27, 2024 - 15:31
 0  2
প্রত্যেককে একটি ইউনিক হেলথ আইডি দেওয়া হবে

স্বাস্থ্যমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন সংসদে বলেছেন, দেশের প্রতিটি নাগরিককে একটি স্বতন্ত্র স্বাস্থ্য পরিচয়পত্র দেওয়ার জন্য একটি স্বাস্থ্য প্রোফাইল তৈরির লক্ষ্যে একটি শেয়ার্ড হেলথ রেকর্ড তৈরির কাজ চলছে। তিনি বলেন, "পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে নির্দিষ্ট কিছু হাসপাতালে ইউনিক হেলথ আইডি দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। পাইলট প্রোগ্রামের ফলাফলের ভিত্তিতে শীঘ্রই এই কার্যক্রম সম্প্রসারিত করা হবে। পাইলটের অধীনে এ পর্যন্ত ১ লাখ ৪ হাজার ৩ হাজার ৮৮৯টি আইডি ইস্যু করা হয়েছে। ইউনিক হেলথ আইডি ইস্যু করার কার্যক্রম ছাড়াও দেশের প্রতিটি নাগরিককে একটি করে ইউনিক হেলথ আইডি দেওয়া হবে।

মঙ্গলবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সংসদ সদস্য মাহমুদ হাসান রিপনের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভা শুরু হলে প্রশ্নোত্তর টেবিলে আলোচনা হয়।

একই প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস শাখার এইচআইএস ও ই-হেলথ অপারেশন প্ল্যানের আওতায় ৬৭টি হাসপাতালে অটোমেশন চালু করা হয়েছে। সব হাসপাতালে অটোমেশন চালু করতে ডিপিপি প্রণয়ন করা হয়েছে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস শাখার মাধ্যমে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ডেঙ্গু রিপোর্টিং তৈরি করা হয়েছে। যার মাধ্যমে ল্যাবে পরীক্ষা করা ডেঙ্গু রোগীদের পরীক্ষার ফলাফল সঙ্গে সঙ্গে পাওয়া যাবে। এটি একই রোগীর একাধিক রিপোর্ট প্রতিরোধ করবে। প্রশিক্ষিত মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) এবং পরিসংখ্যানবিদ/ডেটা এন্ট্রি অপারেটর/কম্পিউটার অপারেটর সারাদেশে সমস্ত সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল এবং ক্লিনিকগুলিতে।

তিনি বলেন, দেশের সব সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও জেলা সদর হাসপাতালে ‘ডেঙ্গু ফোকাল পারসন’ নিয়োগ করা হয়েছে, যাদের মাধ্যমে চিকিৎসার জন্য ডেঙ্গু পরীক্ষার কিট, আইভি ফ্লুইড (স্যালাইন) এবং অন্যান্য রসদ নিয়মিত সংগ্রহ করা হচ্ছে। সারা দেশে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন জেলার ৫৪টি হাসপাতালে ২ লাখ ১৫ হাজার ৭৫২ লিটার আইভি ফ্লুইড (স্যালাইন), ৮ লাখ ৮৭ হাজার ৫৬৯টি স্যালাইন সেট, ২৬ হাজার ১৩৫টি মশারি ও ১ লাখ ১ হাজার ১৫৯টি ডেঙ্গু পরীক্ষার কিট রাখা হয়েছে। দেশের জেলাগুলো। এছাড়া ডেঙ্গু টেস্ট কিট (NS-1) 8 লাখ 51 হাজার 514, Combo IgG & IgM টেস্ট কিট- 1600 এবং গণপ্রজাতন্ত্রী চীন সরকার প্রদত্ত ডেঙ্গু আরএনএ ডায়াগনস্টিক কিট 1100টি সিএমএসডিতে মজুদ রাখা হয়েছে। এছাড়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহায়তায় ৫৫ হাজার ব্যাগ রিঙ্গার ল্যাকটেট স্যালাইন সিএমএসডিতে মজুদ করা হয়েছে। আরও 20 হাজার ব্যাগ 500 মি.লি. সাধারণ স্যালাইন পাওয়া যায়। যা CMSD এ সংরক্ষিত থাকে। ডেঙ্গু পরীক্ষার জন্য ২ লাখ কিট মজুদ রয়েছে। এর মধ্যে ৬৪টি জেলায় ১ লাখ ১১ হাজার কিট সরবরাহ করা হয়েছে। বাকি ৮৮ হাজার কিট মজুদ রয়েছে।

এমপি ফরিদা ইয়াসমিনের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের ৭২টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে আসন রয়েছে ৬ হাজার ৫৫৭টি। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত 5টি মেডিকেল কলেজে 260টি আসন সহ। আইন ও নীতিমালা অনুযায়ী মানসম্মত শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা না করায় ৪টি মেডিকেল কলেজ স্থগিত এবং ২টি মেডিকেল কলেজের অনুমোদন বাতিল করা হয়েছে।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য পঙ্কজ নাথের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে ৩৭টি সরকারি চিকিৎসা কেন্দ্র রয়েছে। যাতে আসন রয়েছে ৫ হাজার ৩৮০টি। আর সেনাবাহিনী পরিচালিত একটি সরকারি মেডিকেল কলেজে আসন রয়েছে ১২৫টি।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা; ইউনিসেফ; ইউএনএইচসিআর; গ্লোবাল ফান্ড; গুরুত্বপূর্ণ কৌশল; শিশুদের বাঁচাও; এনএফএইচ; জাইকাসহ বেশ কয়েকটি বিদেশি সংস্থা কাজ করছে। বাংলাদেশে স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে এসব সংস্থার আর্থিক সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ইফতেখার উদ্দিন তালুকদার পিন্টুর এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার সব সময় স্বাস্থ্য খাতে বিদেশি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করে। দেশের হাসপাতালের সেবার মান উন্নয়নে চীনা বিনিয়োগের মাধ্যমে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

দেশে ১৪ হাজার ৩২০টি কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে:

সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ফরিদা ইয়াসমিনের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন বলেন, সারাদেশে মোট ১৪ হাজার ৮৯০টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এর মধ্যে বর্তমানে সারাদেশে মোট ১৪,৩২০টি কমিউনিটি ক্লিনিক চালু রয়েছে। এছাড়া ৬৩টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণাধীন রয়েছে। কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে, গ্রামীণ জনগণকে প্রধানত স্বাস্থ্য শিক্ষা, স্বাস্থ্য প্রচার, পুষ্টি, পরিবার পরিকল্পনা, উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস নির্ণয়, সীমিত নিরাময়মূলক পরিষেবা সহ জরুরি ও জটিল রোগীদের সঠিক ব্যবস্থাপনার জন্য উচ্চ পর্যায়ের রেফারেল পরিষেবা সরবরাহ করা হয়। এছাড়াও উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, আর্সেনিকোসিস, অটিজম ইত্যাদির মতো অসংক্রামক রোগের প্রাথমিক নির্ণয় এবং রেফারেলের জন্য কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলিতে নিয়মিত স্বাস্থ্য শিক্ষা কার্যক্রমকে আরও জোরদার করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এবং একটি কার্যকর রেফারেল ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠা করা।

What's Your Reaction?

like

dislike

love

funny

angry

sad

wow