রপ্তানিতে বড় ধরনের পতন

Jun 25, 2024 - 15:25
 0  0
রপ্তানিতে বড় ধরনের পতন

চলতি অর্থবছরের শেষার্ধে রপ্তানি পরিস্থিতি ভালো যাচ্ছে না। গত মে মাসে গত ১১ মাসে সবচেয়ে বেশি হারে রপ্তানি কমেছে। এ মাসে পণ্য রপ্তানি কমেছে ১৬ শতাংশের বেশি। মাসওয়ারির মতে, রপ্তানির মূল্য ছিল $407 মিলিয়ন, যা এই অর্থবছরের তৃতীয় সর্বনিম্ন।

গত অক্টোবরে অন্তত ৩ দশমিক ৭৬ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এ নিয়ে টানা চার মাস রপ্তানি কমেছে। এত কম রপ্তানির কারণে চলতি অর্থবছরে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হচ্ছে না। বরং লক্ষ্যমাত্রা ও প্রকৃত রপ্তানি আয়ের মধ্যে বড় ব্যবধান থাকবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। গত অর্থবছর 2022-23 সালে, রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা থেকে 4 শতাংশ কম হয়েছে।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সর্বশেষ প্রতিবেদন বলছে, গত মে মাসে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৪ শতাংশ কম। লক্ষ্য ছিল $5.34 বিলিয়ন। আর অর্থবছরের ১১ মাসে মোট রপ্তানি ওই সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪৭৭ মিলিয়ন ডলার কম। ৪ হাজার ৬৩১ মিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রপ্তানি হয়েছে ৫ হাজার ১৫৪ মিলিয়ন ডলার।

চলতি অর্থবছরে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ হাজার বিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ লক্ষ্যমাত্রা থেকে রপ্তানির ব্যবধান এখনো ১ হাজার ৪৬ বিলিয়ন ডলার। এক মাস বাকি। এই জুন। প্রবণতা বলছে, গড় মাসিক রপ্তানি আয় প্রায় ৪.৫ বিলিয়ন ডলার। জুনে একই স্তরে রপ্তানি অর্থবছর শেষে লক্ষ্যমাত্রা থেকে কমপক্ষে $6 বিলিয়ন কম থাকবে।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সর্বশেষ প্রতিবেদন বলছে, গত মে মাসে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৪ শতাংশ কম। লক্ষ্য ছিল $5.34 বিলিয়ন। আর অর্থবছরের ১১ মাসে মোট রপ্তানি ওই সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪৭৭ মিলিয়ন ডলার কম। ৪ হাজার ৬৩১ মিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রপ্তানি হয়েছে ৫ হাজার ১৫৪ মিলিয়ন ডলার।

চলতি অর্থবছরে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ হাজার বিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ লক্ষ্যমাত্রা থেকে রপ্তানির ব্যবধান এখনো ১ হাজার ৪৬ বিলিয়ন ডলার। এক মাস বাকি। এই জুন। প্রবণতা বলছে, গড় মাসিক রপ্তানি আয় প্রায় ৪.৫ বিলিয়ন ডলার। জুনে একই স্তরে রপ্তানি অর্থবছর শেষে লক্ষ্যমাত্রা থেকে কমপক্ষে $6 বিলিয়ন কম থাকবে।
একক মাসে রপ্তানি বড় হারে কমলেও অর্থবছরের ১১ মাসে রপ্তানি বেড়েছে ২ শতাংশ। রপ্তানি খাতের প্রধান পণ্য তৈরি পোশাকের রপ্তানি সামগ্রিক গড় থেকে সামান্য বেশি, প্রায় ৩ শতাংশ। তবে এ খাতে রপ্তানিও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে প্রায় আট শতাংশ কম।

বিজিএমইএ সভাপতি এস এম মান্নান কচি বলেন, বিশ্বব্যাপী মূল্যস্ফীতি ও তা নিয়ন্ত্রণে সুদের হার বৃদ্ধির কারণে ভোক্তাদের ক্রয়ক্ষমতা কমে গেছে। ফলে খুচরা বিক্রি ও পোশাক আমদানি কমেছে। গত জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত, মার্কিন বৈশ্বিক পোশাক আমদানি কমেছে 7.18 শতাংশ এবং ইউরোপে 12.84 শতাংশ কমেছে। এছাড়াও, পণ্যটির প্রতি ইউনিটের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে। গত জুলাই থেকে মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে বাংলাদেশি পোশাকের দাম ৮ থেকে ১৮ শতাংশ কমেছে। এটি রপ্তানি কমার অন্যতম কারণ।

ইপিবির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্রমশ কমছে হোম টেক্সটাইল রপ্তানি। অর্থবছরের শেষ ১১ মাসে বিভিন্ন হোম টেক্সটাইল পণ্যের রপ্তানি ২৫ শতাংশের মতো কমেছে। লক্ষ্যমাত্রার প্রায় ৩১ শতাংশ কম। 112 মিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে 780 মিলিয়ন ডলারের হোমটেক্স পণ্য রপ্তানি করা হয়েছে। পাট রপ্তানি কমেছে প্রায় ৮ শতাংশ। লক্ষ্যমাত্রার নিচে ১৫ শতাংশ। চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের রপ্তানি কমেছে ১৪ শতাংশ। লক্ষ্যমাত্রার নিচে 22 শতাংশ। তবে কৃষিপণ্য রপ্তানি বেড়েছে ৮ শতাংশ।

What's Your Reaction?

like

dislike

love

funny

angry

sad

wow