OTC থেকে SME পর্যন্ত একটি নতুন রুট

Jun 26, 2024 - 10:25
 0  1
OTC থেকে SME পর্যন্ত একটি নতুন রুট

অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি এলআর গ্লোবাল ছয়টি মিউচুয়াল ফান্ড থেকে প্রাক্তন পদ্মা প্রিন্টার্সে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কমিশন কর্তৃক আরোপিত বিদ্যমান আইন ও শর্তাবলী লঙ্ঘন করেছে। সম্প্রতি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির কমিশন সভায় এমন তথ্য উপস্থাপন করেছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ। এরপরও পদ্মা প্রিন্টার্সসহ এ ধরনের কোম্পানিকে এসএমই বাজারে তালিকাভুক্ত করার জন্য নতুন রাস্তা তৈরি করেছে বিএসইসি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, ১৩ জুন অনুষ্ঠিত কমিশন সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এতে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে এলআর গ্লোবালসহ সংশ্লিষ্ট পক্ষ উল্লিখিত বিনিয়োগে কোনো আইনি বিধান ও শর্ত লঙ্ঘন করেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ সুপারিশ করেছে যে কোনো কোম্পানি যদি ওটিসি থেকে এসএমই বাজারে তালিকাভুক্ত হতে চায়, তাহলে তাকে অবশ্যই কিউআইও প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মূলধন বাড়াতে হবে। কমিশন শুধু ডিএসইর সুপারিশ গ্রহণ করেছে।

জানতে চাইলে বিএসইসির মুখপাত্র রেজাউল করিম বলেন, এ বিষয়ে কিছুই জানা নেই। সংশ্লিষ্ট বিভাগ ভালো বলতে পারবে। সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা সমকালকে বলেন, এ সংক্রান্ত সব তথ্য কমিশনের সামনে উপস্থাপন করা হয়েছে। একই সময়ে, কোয়েস্ট বিডিসি (পূর্বে পদ্মা প্রিন্টার্স), রাঙ্গামাটি ফুড, আল-আমিন কেমিক্যাল এবং পারফিউম কেমিক্যাল, যারা ওটিসি থেকে এসএমই বাজারে তালিকাভুক্ত হতে আগ্রহী, তারা কমপক্ষে 35 শতাংশ পাবলিক শেয়ারের সাথে তালিকাভুক্তির শর্ত যুক্ত করার সুপারিশ করেছে। QIO প্রক্রিয়ায় নতুন শেয়ার বিক্রির মাধ্যমে। কমিশন এ সুপারিশ গ্রহণ করেছে।
জানা গেছে, এলআর গ্লোবালের ছয়টি ফান্ড থেকে পদ্মা প্রিন্টার্সে (বর্তমানে কোয়েস্ট বিডিসি) বিনিয়োগের সব অনিয়ম তুলে ধরা হয়েছে। বিএসইসি পরিশোধিত মূলধন ১.৬ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ কোটি টাকা করার অনুমতি দিয়েছে বলে জানা গেছে। যাইহোক, শর্ত ছিল - শেয়ারগুলি বিদ্যমান শেয়ারহোল্ডারদের কাছে বিক্রি করতে হবে এবং LR গ্লোবাল দ্বারা পরিচালিত ছয়টি তহবিল 10 টাকা অভিহিত মূল্যে। এই শর্ত লঙ্ঘন করে, বিদ্যমান শেয়ারহোল্ডারদের ছাড়াও, এলআরজি ভেঞ্চার থেকে 17.5 কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে। আর আটজনের কাছ থেকে ২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। কমিশনের অনুমোদন ছাড়াই কোম্পানিটি ১৬ কোটি ৬৫ লাখ টাকা প্রিমিয়াম আদায় করেছে।

সংশ্লিষ্ট বিভাগ আরও জানায়, এলআরজি ভেঞ্চার থাইরোকেয়ার বাংলাদেশের ৩৯ লাখ ৭২ হাজার ৯৪২ শেয়ার কোয়েস্ট বিডিসি-র নামে ৪২ টাকা ২৫ পয়সা প্রিমিয়ামে বিক্রি করেছে মোট ২০ কোটি ৭৬ লাখ টাকায় ৫২ টাকা ২৫ পয়সা হারে। এই বিনিয়োগে 31 জানুয়ারী, 2023 তারিখের চিঠিতে দেওয়া শর্তগুলিও লঙ্ঘন করা হয়েছে। গত বছরের ২৫ জুন থাইরোকেয়ার শেয়ার বিক্রি থেকে পাওয়া ২০ কোটি ৭৬ লাখ টাকা থেকে কোয়েস্ট বিডিসির শেয়ার কেনার জন্য এলআরজি ভেঞ্চারস কোম্পানির অ্যাকাউন্টে নগদ ১৭.৫ মিলিয়ন টাকা জমা দেয়। নতুন মূলধন সংগ্রহের জন্য ব্যাংকের মাধ্যমে শেয়ার মানি ডিপোজিট গ্রহণের জন্য কমিশনের বিদ্যমান প্রয়োজনীয়তা লঙ্ঘন।

নতুন নিয়ম অনুসারে, এখন-বিলুপ্ত ওটিসি থেকে এসএমই বাজারে তালিকাভুক্ত একটি কোম্পানিকে যোগ্য বিনিয়োগকারীদের ওভার বা কিউআইও প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আবার তার প্রাথমিক শেয়ার বিক্রি করতে হবে। এক্ষেত্রে পাবলিক শেয়ার কমপক্ষে ৩৫ শতাংশ হতে হবে। মালিকানার পরিবর্তে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে বলেও কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।
কমিশনের অনুমোদন নিয়ে প্রাইভেট প্লেসমেন্ট প্রক্রিয়ায় উত্থাপিত কোনো মূলধন QIO প্রক্রিয়ায় মূলধন সংগ্রহের আগে ব্যবহার করা হবে না। QIO প্রক্রিয়ার সমস্ত বিদ্যমান নিয়মগুলি এই সংস্থাগুলিকে অনুসরণ করতে হবে৷

What's Your Reaction?

like

dislike

love

funny

angry

sad

wow